টেকাপয়সা আর কি জিনিস, হাতের ময়লা! অসময়ে ঠেকায় পড়ে চশমার দোকানে হাতের ময়লা ঝাড়তে গিয়ে হাতই অলমোস্ট খুলে যাইতে লাগছিলো! :|

দুইটা ফ্রেম নিছি, একটা কনভার্সের, আরেকটা ওকলের (অরিজিনাল নাকি রেপ্লিকা, জানি না!)। একটায় ৪০%, আরেকটা ৮০% ডিসকাউন্ট দিছে, সাথে বড়ভাইর দেয়া টেলিকমের অফারে আরও ৫% ডিসকাউন্ট। সবমিলায়ে মোটামুটি পোষায়ে গেছে!

মারাটা খাইছি, লেন্স নিতে গিয়া। একেবারে নিচের লিস্টে হোয়াইট লেন্সই চাইতেছিলো গিয়ে ২৫০০ টাকার মত (৩০% ডিসকাউন্ট দিয়ে), যেটা দেশে নরমাল লেন্স ২০০-৩০০ টাকা। আমি ফটোক্রনিক লেন্স নিতে চাইতেছিলাম, সেইটা চাইলো গিয়ে ৬৫০০ টাকা, দেশে ফটোক্রনিক ১০০০ টাকা রাখে ম্যাক্স!

আরেকটা ফ্রেমের (সানগ্লাস) জন্য মিরর লেন্স নিতে চাইতেছিলাম, প্রথমে ভুলে ফটোক্রনিক মিরর লেন্স দেখাইতেছিলো ভুলে, যেটার দাম আমার ফ্রেমের চাইতে বেশি! আমি মনে মনে কই কাম সারছে! মাইয়াডাও বুঝতে পারছিলো, আমার খবর হয়া গেছে দাম শুইনা! প্রথমে কয় তাইলে একটা নিবা নাকি, পরে নিজেই খুইজা কমদামের ভিতর নরমাল একটা মিরর লেন্স বাইর কইরা দিছে!

সবমিলায়ে বাস্কেট সাইজ হয়া গেছে এইখান থিকা ঢাকায় গিয়া ফেরত আসার বিমান ভাড়ার চাইতে বেশি! (এন্ড ট্রাস্ট মি, এই রুটে ভাড়া ম্যালা টেকা, উল্টা রুটে ম্যালা সস্তা পড়ে)। কার্ড পাঞ্চ করার পরে মনে হইতেছিলো, ধুরুবাল, তারচাইতে বিমান ভাড়া দিয়ে মিরপুর ১ থিকা চশমা বানায়া নিয়া আইলেও মনে হয় পোষাইত! :P

অবশ্য দেশের এক্সপেরিয়েন্সও ভালা না। একবার আমি ৩০০০ টাকা খরচ কইরা ক্রিজেলের লেন্স নিছিলাম, দাগ পড়বে না এই শর্তে। ঘোড়ারডিম কতনাম্বার ক্রিজেল দিছিলো, আল্লায়ই জানে, ৬ মাসও যায়নাই জিনিস! এইবার দেখাযাক এখন কি আছে কপালে!




What's on your mind?